Style Options
নওয়াপাড়া সরকারি মহাবিদ্যালয়-এর গুরুত্বপূর্ণ নোটিশ পেতে নিম্নে লিংকে ক্লিক করুন  |  

অধ্যক্ষের বানী

Picture

মেধা ও প্রতিভা নিয়ে পৃথিবীতে কেউ জন্মায় না। প্রতিভা ও মেধার বিকাশ ঘটাতে হয়। জন্ম নিলেই মানুষ মানুষ হয় না, মনুষ্যত্ব দিয়ে তাকে মানুষ বানাতে হয়। পিতামাতা হলো সন্তানদের জন্য পৃথিবীর শ্রেষ্ঠতম শিক্ষক এবং পরিবারই হল সবচেয়ে বড় বিদ্যাপীঠ। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হল মেধা ও প্রতিভা বিকাশের অন্যতম স্থান। সেই বিকাশের অন্যতম কারিগর হল শিক্ষক। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জ্ঞান বিজ্ঞান, খেলাধুলা ও সংস্কৃতি চর্চার কল্যাণেই মনুষ্যত্ব ও মেধার সম্প্রসারণ ঘটে। আর মেধার সম্প্রসারণ ঘটাতে পারলেই জাগরণ ঘটে একটি জাতির। একটি দেশকে উন্নতির শিখরে পৌছাতে হলে জাতিকে গড়ে তুলতে হবে শিক্ষিত করে। সময়ের বিবর্তনের সাথে সাথে পরিবর্তন ঘটেছে শিক্ষাক্ষেত্রেও। বর্তমান সরকারের সময়ে শিক্ষা ক্ষেত্রে বৈপ্লবিক অগ্রগতি সাধিত হয়েছে। আধুনিক জ্ঞান-বিজ্ঞানের ফলে প্রযুক্তি আজ আকাশছোঁয়া। একবিংশ শতাব্দীর বড় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে তথ্য প্রযুক্তিতে সমৃদ্ধতা গড়ে তোলা। এরই আলোকে বর্তমান সরকারের ডিজিটাল স্বপ্ন বাস্তবায়নে অভয়নগর উপজেলার ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ নওয়াপাড়া সরকারি মহাবিদ্যালয় পরিবারও বদ্ধপরিকর।

বর্তমান সরকার স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণে আমরা নওয়াপাড়া সরকারি মহাবিদ্যালয় পরিবারও একত্বতা প্রকাশ করছি। এই লক্ষ্য পূরণে ইতিমধ্যেই আমরা শ্রেণি কক্ষে প্রজেক্টর ও ল্যাপটপের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মাঝে ডিজিটাল পদ্ধতিতে পাঠদান প্রক্রিয়া চালু করা হয়েছে। এছাড়া শেখ রাসেল আধুনিক ডিজিটাল ল্যাব ও রোভার-স্কাউট প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। এছাড়াও খেলাধুলা ও সাহিত্য সংস্কৃতি চর্চা অব্যাহত রয়েছে।  পরিবেশগত শৃঙ্খলা নিশ্চিত করণে প্রতিষ্ঠানকে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরার আওতাভুক্ত করা হয়েছে। 

আমি অত্র প্রতিষ্ঠানের সাফল্য ও মান সম্পন্ন শিক্ষা নিশ্চিত করণে উন্নয়নের অগ্রযাত্রার ধারাবাহিকতায় আপামর জনসাধারণের সার্বিক সাহায্য ও সহযোগিতা কামনা করছি। এ কলেজের উত্তরোত্তর শ্রীবৃদ্ধি ঘটুক, মহান আল্লাহ্’র কাছে এই কামনা করছি।

রবিউল হাসান
অধ্যক্ষ
নওয়াপাড়া সরকারি মহাবিদ্যালয়